টাঙ্গাইলের বঙ্গবন্ধুসেতু দিয়ে ২৪ ঘণ্টায় ৩০ হাজার যানবাহন পারাপার

0 26

নিউজ স্রোত:

 

বঙ্গবন্ধু সেতু দিয়ে সোমবার সন্ধ্যা ৬টা থেকে মঙ্গলবার(১৩ এপ্রিল) সকাল ৬টা পর্যন্ত ২৪ ঘণ্টায় ৩০ হাজারের অধিক যানবাহন পারাপার করেছে। কঠোর লকডাউনের ঘোষণায় ঘরে ফেরা মানুষের জন্য বঙ্গবন্ধুসেতু-ঢাকা মহাসড়কে গাড়ির চাপ বাড়ায় দূরপাল্লার বাস চলাচল বন্ধ থাকলেও ছোট যানবাহন ও মালামালবাহী যান পরিবহন বেড়েছে।

২৪ ঘণ্টায় রেকর্ড সংখ্যক ৩০ হাজারের অধিক যানবাহন পারাপার হওয়ায় সেতুতে টোল আদায় হয়েছে প্রায় সোয়া দুই কোটি টাকা- যা স্বাভাবিক সময়ের চেয়ে দ্বিগুন। মহাসড়কে পণ্যপরিবহনে নিয়োজিত যানবাহন, ব্যক্তিগত ছোট যানবাহন ও মোটরসাইকেলের আধিক্য থাকলেও বিপুল সংখ্যক যাত্রাবাহী বাসও পারাপার হয়েছে বলে নিশ্চিত করেছে বাসেক’র একাধিক সূত্র।

মঙ্গলবার সকাল থেকে ঘরে ফেরা মানুষের চাপে মহাসড়কে অতিরিক্ত যানবাহনের চাপও বেড়েছে। মালবাহী ট্রাকসহ খোলা ট্রাক, পিকআপ, মাইক্রোবাস ও ব্যক্তিগত গাড়িতে গাদাগাদি করে বাড়িতে ফিরছে যাত্রী সাধারণ। মহাসড়কে ব্যক্তিগত গাড়িতে যাত্রী পরিবহন করায় স্বাস্থ্যবিধি মানা হচ্ছে না। করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ঝুঁকি নিয়েই বাড়ি ফিরছে তারা। দূরপাল্লার গণপরিবহণ চলাচল বন্ধের ঘোষণা থাকলেও অনেক পরিবহন চালকরা তা মানছেন না।

এ বিষয়ে এলেঙ্গা হাইওয়ে পুলিশের অফিসার ইনচার্জ ইয়াসির আরাফাত জানান, যেসব বাস মহাসড়কে আটকা পড়ে ছিল তারা নিজ নিজ ডিপো বা টার্মিনালে পার্কিং করার জন্য যাচ্ছে। এসব বাসে কোন যাত্রী পরিবহন করতে পারবে না। মহাসড়ক থেকে কোন প্রকার যাত্রী যেন পরিবহন না করতে পারে সেজন্য মোড়ে মোড়ে পুলিশের চেকপোস্ট বসানো হয়েছে। এর পরেও কিছু বাস গভীর রাতে গোপনে চলাচল করার চেষ্টা করেছে- তাদের বিরুদ্ধেও আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।

Leave A Reply

Your email address will not be published.