নাগরপুরে জনপ্রিয়তার শীর্ষে বীর মুক্তিযোদ্ধা আনোয়ার হোসেন খান

0 11

নাগরপুর প্রতিনিধি:-

আসন্ন ইউনিয়ন পরিষধ নির্বাচন কে সামনে রেখে গণসংযোগে ব্যস্ত সময় পার করছেন টাঙ্গাইলের নাগরপুর উপজেলার সলিমাবাদ ইউনিয়নের বিশিষ্ট ব্যবসায়ী ও শিক্ষা অনুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুরাগী বীর মুক্তিযোদ্ধা মো. আনোয়ার হোসেন খান। পারিবারিক পরিচিতি মেয়ে আয়শা আক্তার শিউলি কানাডা প্রবাসী নাগরিক ও একমাত্র ছেলে ইমরান হোসেন খান নিউজিল্যান্ড প্রবসী নাগরিক। বঙ্গবন্ধুর আদর্শকে বুকে ধরে জননেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করার লক্ষ্যে নিরলস ভাবে কাজ করে যাচ্ছেন মাঠ পর্যায়ে। তিনি বিভিন্ন সামাজিক ও রাজনৈতিক কর্মকান্ডের মাধ্যমে ইতি মধ্যে ইউনিয়ন বাসীর আস্থা অর্জন করতে সক্ষম হয়েছেন।
বীর মুক্তিযোদ্ধা আনোয়ার হোসেন খান সলিমাবাদ ইউনিয়নের মৃত ঃ মোঃ নামদার খান এর ছেলে। ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধের সময় ভারতের আসাম কাছার জেলার লায়লাপুর ট্রেনিং সেন্টার তাজউদ্দিন ক্যাম্প থেকে ট্রেনিং নিয়ে ঝাপিয়ে পরেন মুক্তিযুদ্ধে। পরে ১৯৭৭ সালে নাগরপুর সরকারি কলেজ থেকে বি.কম পাস করার পর শিক্ষা জীবনের সমাপ্তি ঘটিয়ে শুরু করেন ব্যবসা। বাংলাদেশ ও আবুধাবীতে সুনামের সহিত চালিয়ে যান ব্যবসা বানিজ্য। রাজনৈতিক ক্ষেত্রেও পিছিয়ে নেই আনোয়ার হোসেন খান। বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশন আবুধাবী আল-আইন শাখার ৫ বছর সাধারন সম্পাদক ও ৫ বছর সভাপতির দায়িত্ব সুনামের সহিত পালন করেন। ব্যবসার পাশাপাশি সে সামাজিক কর্মকান্ডে ও দেশের দূর্যোগ মুহুর্তে বাড়িয়ে দেন সহযোগিতার হাত। ১৯৯৮ সালের বন্যায় দুর্গতদের জন্য তৎকালীন ও বর্তমান প্রধানমন্ত্রীর হাতে তুলে দেন ৯ লক্ষ টাকার চেক। শিক্ষার প্রসার ঘটানোর জন্য নিজ অর্থায়নে ২০০৪ সালে প্রতিষ্ঠা করেন সলিমাবাদ বীর মুক্তিযোদ্ধা আনোয়ার খান মডেল উচ্চ বিদ্যালয়। এই বিদ্যালয়ে শুরু হতে ছাত্র/ছাত্রীদের কোন প্রকার বেতন নেওয়া হয়না এমনকি ছাত্র/ছাত্রীদের স্কুল ড্রেস ও গরীব ছাত্র/ছাত্রীদের সাহায্য সহযোগিতা করা হয়। স্কুল স্থাপনায় ১৬ বছরে শিক্ষক/কর্মচারীদের বেতন ভাতা ও অন্যন্য আসবাবপত্রসহ নিজস্ব ব্যক্তিগত অর্থায়ন হতে প্রায় কোটি টাকার ব্যায় করেছেন। বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত রাস্তা ঘাট সংস্কার ও বিভিন্ন স্কুল, মাদ্রাসা, ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান সমুহে সহযোগিতা করে আসছেন তিনি। বিগত বন্যায় সলিমাবাদ চাদগঞ্জ হাট হতে ইউনিয়ন পরিষদের পাশ দিয়ে যে রাস্তাটি গয়হাটার দিকে চলে গেছে সে রাস্তাটির ব্যাপক ক্ষতি হওয়ায় নিজের অর্থায়নে বিগত ১৪/২/২০২১ ইং হতে ১৪/১৫ জন লেবার দিয়ে রাস্তা মেরামত ও মাটি ভরাটের কাজ জনসাধারনের চলাচলের সুবিধার জন্য নিরলস ভাবে করে যাচ্ছেন। এ রাস্তাটি মেরামতের জন্য ব্যায় হবে আনুমানিক ৪ লক্ষ টাকা। ইতিমধ্যে ২ লক্ষ টাকা ব্যায় করা হয়েছে এবং রাস্তাটির কাজ চলমান রয়েছে। যার ফলে এলাকা বাসীর কাছে সমাজ সেবক হিসেবে রয়েছে তার ব্যাপক জনপ্রিয়তা। উল্লেখ্য সলিমাবাদ ইউনিয়ন পরিষদের কমপ্লেক্স ভবনের জমি তার বাবা মৃত মোঃ নামদার খান দান করেছিলেন।
বীর মুক্তিযোদ্ধা মো. আনোয়ার হোসেন খান বলেন, আগামী ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ থেকে দলীয় প্রতীক নৌকা মনোনয়ন আমি চাইবো। যেহেতু আমার পরিবার একটি আওয়ামী পরিবার। আমি আমার ইউনিয়ন বাসী সহ সকলের নিকট দোয়া ও সহযোগীতা কামনা করি।

Leave A Reply

Your email address will not be published.