ধনবাড়ী পৌরসভা নির্বাচনে কে হচ্ছেন পৌর পিতা?

0 52

ধনবাড়ী থেকে ঃ

সারা দেশব্যাপী অনুষ্ঠিতব্য পৌরসভা নির্বাচনের দ্বিতীয় ধাপে আগামী ১৬ জানুয়ারী টাংগাইল জেলার সর্বশেষ প্রান্ত ধনবাড়ী পৌরসভায় অনুষ্ঠিত হবে পৌর নির্বাচনের ভোট। প্রথম বারের মত ইভিএমের মাধ্যমে ভোধাধিকার প্রয়োগ করবেন এই পৌরসভার ভোটারবৃন্দ। এরই মধ্যে ভোটারদের দারে দারে গিয়ে নানা প্রতিশ্রæতি দিচ্ছেন মেয়র প্রার্থীগণ। সকাল থেকে গভীর রাত পর্যন্ত ধনবাড়ী পৌরসভার বিভিন্ন হাট বাজারে ও বিভিন্ন মোড়ের চায়ের দোকান গুলোতে নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দী প্রার্থীদের নিয়ে চলছে নানা রকম চুলচেরা বিশ্লেষন। কে বসবেন পৌর পিতার আসনে।
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা অবিভক্ত বাংলার প্রথম মুসলমান মন্ত্রী নবাব বাহাদুর সৈয়দ নওয়াব আলী চৌধুরীর জন্মস্থান হল ধনবাড়ী। উপজেলা সদরের সন্নিকটে অবস্থিত নওয়াব প্যালেস। ১৯৯৬ সালের প্রতিষ্ঠিত তৃতীয় শ্রেণির এ পৌরসভার জনগণ বর্তমানে দ্বিতীয় শ্রেণির নাগরিক সুবিধা ভোগ করছে। গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় কৃষি মন্ত্রী ড. মোঃ আব্দুর রাজ্জাকের সংসদীয় আসন টাংগাইল-১ (ধনবাড়ী-মধুপুর) হওয়ায় এ পৌরসভাতে সব জায়গায় রয়েছে বর্তমান সরকারের উন্নয়নের ছোঁয়া।
ধনবাড়ী পৌরসভা নির্বাচনে ৪ জন মেয়র পদে প্রতিদ্বন্দিতা করছেন। বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ মনোনিত নৌকা প্রতিকে প্রার্থী বৃহত্তর মুশুদ্দি ইউনিয়নের দুই-দুই বারের চেয়ারম্যান, ধনবাড়ী পৌর সভার দুই বারের বর্তমান মেয়র, ধনবাড়ী উপজেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক খন্দকার মঞ্জুরুল ইসলাম তপন। দলীয় সিদ্ধান্ত অমান্য করে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নারিকেল গাছ প্রতিকে নির্বাচনে অংশগ্রহন করছেন সদ্য বহিঃস্কৃত উপজেলা আওয়ামী যুবলীগের সভাপতি মুহাঃ মনিরুজ্জামান বকল ও জগ প্রতিক নিয়ে টাংগাইল জেলা আওয়ামীলীগের উপদেষ্টা মন্ডলীর সদস্য, সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান মুহাম্মদ আলী কিসলু। বিএনপি থেকে ধানের শীষ প্রতিক নিয়ে একমাত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনে অংশগ্রহন করছেন পৌর বিএনপি’র আহŸায়ক এস,এম,এ সোবহান। আওয়ামীলীগের দু’জন বিদ্রোহী প্রার্থী থাকলেও মূলত লড়াই হবে নৌকা ও ধানের শীষ প্রতিকের প্রার্থীদের মধ্যে।
সরেজমিনে গিয়ে কথা হয় বিভিন্ন ভোটারদের সাথে। মূলত আওয়ামীলীগ ও বিএনপি’র মেয়র প্রার্থীকে ঘিরে ভোটারদের মাঝে আলাপ আলোচনা ও মিশ্র প্রতিক্রিয়া লক্ষ্য করা গেছে। কথা হয় রূপশান্তি গ্রামের ভোটার হারুন অর রশিদ এর সাথে তিনি বলেন, যার দ্বারা আমাদের পৌরসভার অসমাপ্ত কাজগুলো করাতে পারবো। আমাদের পৌরসভার নাগরিকদের জীবন মান উন্নত করতে পারবে, যে নাগরিক সুবিধা বেশি দিতে পারবে এমন যোগ্য প্রার্থিকে আমি ভোট দিব। হবিপুর বাজারে চা স্ট্রলে কথা হয় নুরুল ইসলামের সাথে তিনি বলেন বর্তমান সরকার আওয়ামীগের সরকার, আমাদের সবার উচিৎ আওয়ামীলীগ মনোনীত প্রার্থীকে ভোট দিয়ে জয়যুক্ত করা। বান্দ্রা ক্লাব মোড়ে কথা হয় ফজলুর রহমানের সাথে তিনি বলেন ধনবাড়ী উন্নয়নের রূপকার কৃষিমন্ত্রী ড. মোঃ আব্দুর রাজ্জাকের নিজ উপজেলা হওয়ায় পৌরসভার সার্বিক উন্নয়নের লক্ষ্যে নৌকা মার্কার প্রার্থীকে আমাদের বিজয়ী করা। যদি নৌকা মার্কার প্রার্থীকে আমরা বিজয়ী করতে না পারি উন্নয়ন বাধাগ্রস্থ হতে পারে। বিলাসপুর গ্রামের মোঃ রেজুয়ান বলেন আমি ধানের শীষ মার্কায় ভোট দিতে কেন্দ্রে যাবো। সকাল থেকে আমরা কেন্দ্র পাহারা দিবো, যাতে করে আমাদের ভোট কেউ ছিনিয়ে নিতে না পারে। একই গ্রামের শহিদ বলেন আমরা শহীদ জিয়ার সৈনিক। বিএনপি মনোনিত প্রার্থীকে ভোট দিবো। জয় আমাদের হবে।
আওয়ামীলীগ মনোনিত প্রার্থী খন্দকার মঞ্জুরুল ইসলাম তপন বলেন, স্বাধীনতার প্রতিক নৌকা, উন্নয়নের প্রতিক নৌকা, বঙ্গবন্ধুর প্রতিক নৌকা, জননেত্রী শেখ হাসিনার উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা গড়তে একটি আধুনিক মডেল তিলোত্তমা পৌরসভা গড়ার লক্ষ্যে আগামী ১৬ জানুয়ারী’র নির্বাচনে নৌকার পক্ষে যে গণজোয়ার সৃষ্টি হয়েছে বিজয় আমাদের ইনশাআল্লাহ সুনিশ্চিত। আওয়ামীলীগসহ বিভিন্ন অঙ্গসংগঠন, সামাজিক সাংস্কৃতিক সংগঠনসহ পৌরবাসি নৌকাকে বিজয়ী করার জন্য ঐক্যবদ্ধ হয়েছে।
বিএনপি প্রার্থী এস,এম,এ সোবহান বলেন ভোটারদের মাঝে আমি যে উৎসাহ উদ্দীপনা দেখেছি-একটি অবাধ সুষ্ঠু নিরপেক্ষ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হলে ধানের শীষের বিজয় শতভাগ নিশ্চিত। আমি প্রশাসনের কাছে অবাধ সুষ্ঠু নিরপেক্ষ নির্বাচন আশা করছি।
ধনবাড়ী পৌরসভায় ৯টি ওয়ার্ডে ১৫টি কেন্দ্রে ৩০ হাজার ৩ জন ভোটার ইভিএমের মাধ্যমে তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ১৪ হাজার ৪৬৩ জন এবং মহিলা ভোটার ১৫ হাজার ৫৪০ জন। স্থানীয় প্রশাসন অবাদ সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন উপহার দেওয়ার জন্য সার্বিক প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছেন।

Leave A Reply

Your email address will not be published.