টাঙ্গাইল শহর রক্ষা বাঁধে নতুন করে ভাঙন

0 1

নিউজ স্রোতঃ

 

টাঙ্গাইল সদর উপজেলার শিবপুর পাছ বেথর এলাকার পুংলী নদীর পাশে শহর রক্ষা বাঁধে নতুন করে ভাঙন শুরু হয়েছে। নদীর এক পার কেটে আরেক পারে ভাঙ্গন রক্ষার চেষ্টা করছে পানি উন্নয়ন বোর্ডের ঠিকাদাররা। স্থানীয়রা জানান, স¤প্রতি বন্যার পানি কমে যাওয়ার কারণে টাঙ্গাইল সদর উপজেলার শিবপুর পাছ বেথর এলাকার পুংলী নদীতে ব্যাপক ভাঙ্গন দেখা দেয়। এতে হুমকির মুখে পরে টাঙ্গাইল শহর রক্ষা বাধটি। ফলে পানি উন্নয়ন বোর্ড ভাঙ্গন রোধে নদীর বিপরীত পাশ থেকে মাটি কেটেই জিও ব্যাগ ফেলে ভাঙ্গন রোধের চেষ্টা করছে। এতে শহর রক্ষা বাধ রক্ষা পেলেও নতুন করে আশেপাশে ভাঙ্গন আতংক দেখা দিয়েছে। এর আগে গত ২৩ জুলাই সদর উপজেলার শিবপুর পাছ বেথর এলাকায় পুংলী নদীর পাশে শহর রক্ষা বাঁধটির প্রায় ২৫০ মিটার ভেঙে যায়। এতে করে হুমকির মুখে পড়ে স্থানীয় এলাকাবাসী। এই ভাঙন ঠেকাতে আপদকালীন ব্যবস্থা নেয় পানি উন্নয়ন বোর্ড। তাদের দাবি ২৫০ মিটার ভাঙন এলাকায় সাড়ে ১৩ হাজার বালির বস্তা (জিও ব্যাগ) ফেলা হয়েছে। এতে ব্যয় ধরা হয়েছে ৪৫ লাখ টাকা। তবে এলাকাবাসী জানায়, এ ভাঙন রক্ষায় পানি উন্নয়ন বোর্ড মাত্র তিন থেকে চার হাজার বালির বস্তা ফেলেছে। এতে করে বাঁধ রক্ষায় কোনো লাভ হবে না বলে মনে করছেন স্থানীয় এলাকাবাসী। তারা জানান, পানি উন্নয়ন বোর্ড দায়সারা ভাবে কাজ করায় প্রতিবছরই ভাঙনের শিকার হতে হচ্ছে আমাদের। আগামীতে পানি আসার সাথে সাথেই যে পার থেকে মাটি কাটছে সেই পারের মানুষ ভাঙনের শিকার হবে। পানি উন্নয়ন বোর্ড ও ঠিকাদার যোগসাজস করে এমন কাজ করছে। টাঙ্গাইল সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান শাহজাহান আনছারী জানান, এ বিষয়টি আমি শুনেছি তবে সেখানে আমারা এখনও যাওয়া হয়নি। ঠিকাদার ভাঙ্গন এলাকায় বালি ফেলার জন্য দূর থেকে বালি আনার কথা। নদীর ওপার থেকে মাটি কেটে এপারে ভাঙন রোধে বস্তা ফেলা হলে যদি মানুষ ক্ষতিগ্রস্থ হয় তাহলে এটা করা উচিৎ নয়। এদিকে, টাঙ্গাইল পানি উন্নয়ন বোর্ডে নির্বাহী প্রকৌশলী সিরাজুল ইসলাম জানান, ইতিপূর্বে নদীর গতিপথ ঠিক রাখতে স্থানীয় প্রশাসনের সাথে কথা হয়েছিলো নদীর যেখানে চর পরেছে সেখান থেকে মাটি কাটার। কিন্তু বরাদ্ধ না থাকায় সেখান থেকে মাটি কাটা হয়নি। বর্তমানে শহর রক্ষা বাঁধে ভাঙ্গন দেখা দেয়ায় জরুরি ভিত্তিতে ঐ চর থেকে মাটি কেটে আপাতত ভাঙ্গন রোধ করা হচ্ছে। নদীর পাড় থেকে মাটি কাটা হচ্ছে না বলেও দাবী করেন তিনি।

Leave A Reply

Your email address will not be published.