সখীপুরে সাতদিনের ব্যবধানে দুই বান্ধবীর বাল্য বিয়ে

0 2

সখীপুর প্রতিনিধি :

টাঙ্গাইলের সখীপুরে সাতদিনের ব্যবধানে বড়চওনা উচ্চ বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণিতে পড়–য়া দুই বান্ধবীর বাল্যবিয়ে অনুষ্ঠিত হয়েছে। উপজেলার বড়চওনা কলেজ মোড় বিন্নরীপাড়া গ্রামে গত ১৫ আগস্ট শনিবার এবং ২৩ আগস্ট রবিবার এ দুটি বিয়ে অনুষ্ঠিত হয়। এ দুটি বাল্যবিয়েরই রেজিস্ট্রি করেন পাশ্ববর্তী ভালুকা উপজেলার উথুরা ইউনিয়ন কাজী আবদুস সালামের ছেলে নূরুজ্জামান। সোমবার সরেজমিন ওই এলাকায় গিয়ে বাল্যবিয়ে দুটির সত্যাতা মিলে।
জানা যায়, গত ১৫ আগস্ট শনিবার রাতে উপজেলার বড়চওনা উচ্চ বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণিতে পড়–য়া বড়চওনা কলেজ মোড় বিন্নরীপাড়া গ্রামের হালেম মিয়ার মেয়ে হালিমা আক্তার (১৪) এর সহিত নামদারপুর সুলতান নগর গ্রামের আবদুল গফুরের ছেলে আজাহার উদ্দিনের ৫ লাখ ৫০ হাজার টাকা কাবিনে বিয়ে হয়। সাত দিনের মাথায় ২৩ আগস্ট রাতে তারই বান্ধবী একই এলাকার মানিক মিয়ার মেয়ে মুক্তা আক্তার (১৪) এর সহিত ৪ লাখ ৫০ হাজার টাকা কাবিনে ভালুকা উপজেলার কৈয়াদি গ্রামের এক প্রবাসীর সঙ্গে বিয়ে হয়।
এ ব্যাপারে স্থানীয় ইউপি সদস্য মজিবর রহমান ফকির ওই দুটি বাল্য বিয়ের বিষয়ে তিনি কিছু জানেন না বলে দাবি করেন।
বড়চওনা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোহাম্মদ লাল মিয়া জানান, করোনা ভাইরাসের কারণে বিদ্যালয় বন্ধ থাকায় এ বিষয়ে কিছু জানতে পারেননি।
কাজী আবদুস সালামের ছেলে নূরুজ্জামানের মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি বিয়ে দুটি রেজিস্ট্রি করার বিষয়ে অস্বীকার করেন।
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আসমাউল হুসনা লিজা বলেন,খোঁজ নিয়ে দায়ীদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে। কাজীর বাড়ি ভালুকা উপজেলায় হওয়ায় তিনি সংশ্লিষ্ট উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে অনুরোধ করবেন বলেও জানান।

Leave A Reply

Your email address will not be published.