টাঙ্গাইলে পরিবহন থেকে চাঁদা ও অতিরিক্ত ভাড়া আদায় বন্ধে মাঠে পুলিশ

0 16

নিউজ স্রোতঃ

চলমান পরিস্থিতিতে মহাসড়কে পরিবহন থেকে চাঁদা আদায় বন্ধ ও গণপরিবহনে সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করার লক্ষে টাঙ্গাইলের পুলিশ সদস্য ব্যাপক কাজ করে যাচ্ছে। এছাড়াও পরিবহনের চালক ও সুপারভাইজাররা যাতে করে যাত্রীদের কাছ থেকে অতিরিক্ত ভাড়া আদায় করতে না পারে সেদিকেও নজর রাখছেন তারা। অন্যদিকে পরিবহন চালকদের কাছ থেকে রশিদের মাধ্যমে চাঁদা দাবি করলে সে বিষয়েও পুলিশকে জানালে তাৎক্ষনিক আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন করবে বলে জানিয়েছে পুলিশ। করোনভাইরাসে ঝুঁকি নিয়ে টাঙ্গাইলের পুলিশ সুপার সঞ্জিত কুমার রায়ের নির্দেশেনায় ও সদর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার রেজাউর রহমান রেজার তত্ত¡াবধানে সদর থানার ওসি মীর মোশারফ হোসেন সার্বক্ষনিক কাজ করে যাচ্ছেন। প্রখর রোধ ও প্রাকৃতিক দুর্যোগ মোকাবেলা করে তাদের সড়কে দায়িত্ব পালন করতে দেখা গেছে। শহরের কলেজপাড়া, বেবিস্ট্যান্ড, শান্তিকুঞ্জমোড়, পুরাতন বাসস্ট্যান্ড ও নতুন বাসস্ট্যান্ডের ব্যাটারি চালিত অটোরিক্সা ও সিএনজি চালকরা যাতে যাত্রীদের অতিরিক্ত ভাড়া আদায় করতে না পারে এবং শ্রমিক ও মালিক সমিতি থেকে যাতে করে চাঁদা আদায় করতে না পারে সেদিকেও বিশেষ নজর দিচ্ছে পুলিশ। এসব কাজে সদর পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ ও পুলিশ পরিদর্শক মো. মোশারফ হোসেনসহ অন্যান্য পুলিশ কর্মকর্তা এবং সদস্যরা অংশ নিচ্ছেন। টাঙ্গাইল সদর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মীর মোশারফ হোসেন বলেন, টাঙ্গাইলের পুলিশ সুপার সঞ্জিত কুমার রায়ের নির্দেশনায় ও সদর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার রেজাউর রহমান রেজার তত্ত¡াবধানে আমরা কাজ করে যাচ্ছি। করোনাভাইরাসের ঝুঁকির মধ্যেও আমরা মাঠে ছিলাম, আছি ও ভবিষ্যতে থাকবো। শুধু করোনাভাইরাস নয় যেকোন প্রাকৃতিক দুর্যোগসহ যে কোন প্রয়োজনে পুলিশ জনগণের পাশে থাকবে। বর্তমান সময়ে পরিবহন সেক্টর থেকে যাতে করে কেউ রশিদের মাধ্যমে চাঁদা তুলতে না পারে সেদিকে পুলিশ সার্বক্ষনিক কাজ করে যাচ্ছেন। এছাড়াও গণপরিবহনে সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করার লক্ষে কাজ করে যাচ্ছে। পরিবহন থেকে যদি কেউ চাঁদা আদায় করে সে বিষয়টিও পুলিশকে জানালে পুলিশ আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।

Leave A Reply

Your email address will not be published.