বিদ্যুৎতের ঘাটতি না থাকলেও টাঙ্গাইলের বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড বিক্রয় ও বিতরন বিভাগ-২ কচুয়াডাঙ্গা সাব-ষ্টেশনের ৯টি ফিডারের গ্রাহকরা চরম ভোগান্তির মধ্যে পড়েছে

0 136

নিউজ স্রোতঃ
বিদ্যুৎতের ঘাটতি না থাকলেও টাঙ্গাইলের বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড বিক্রয় ও বিতরন বিভাগ-২ কচুয়াডাঙ্গা সাব-ষ্টেশনের ৯টি ফিডারের গ্রাহকরা চরম ভোগান্তির মধ্যে পড়েছে। ঘন ঘন বিদ্যুৎ বিভ্রাট ও লোডলেডিং এর কারনে এই সাব-ষ্টেশনের দায়িত্ব প্রাপ্ত কর্মকর্তা/কর্মচারিদের সঠিক ভাবে গ্রাহকদের সেবা দিতে পারছেনা বলে অভিযোগ উঠেছে। বিদ্যুৎ বিভ্রাট দেখা দিলে অভিযোগ শাখায় ফোন করেও সঠিক কোন জবাব পাচ্ছেনা গ্রাহকরা। অধিকাংশ সময় অভিযোগ শাখার কর্মরতরা ফোন রিসিভ করেননা। এমন অভিযোগও রয়েছে তাদের বিরুদ্বে। এই সাব-ষ্টেশনে ৯টি ফিডারে ৪৫ হাজার গ্রাহক রয়েছে। তারা বিদ্যুৎ এর বিভ্রাটে অতিষ্ট হয়ে উঠেছে।
এই সাব-ষ্টেশনের থানাপাড়া ফিডারে গত ২৪ ঘন্টায় অন্ততঃ ২০বার বিদ্যুৎ বিভ্রাট দেখা গেছে। কোন সময় ২ঘন্টা আবার কোন ৩০/৪০মিনিট লোডশেডিং দেয়া হচ্ছে। আবার ২/১মিনিট পরপর বিদ্যুৎ চলে যাচ্ছে। এতে প্রমান পাওয়া যায় যারা অপারেটরের দায়িত্বে রয়েছে তাদের বিদ্যুৎ বন্ধের সুইস এ চাপ না দিলে ভাল লাগেনা। গ্রাহকরা যে ভোগান্তিতে পড়ছে তা তারা ভাবছেনা। তাদের ইচ্ছে মতো বিদ্যুৎ সরবরাহ করছে। খোজ নিয়ে জানা যায়, কচুয়াডাঙ্গা সাব-ষ্টেশনের সকল ফিডারের একই অবস্থা। কি কারনে তারা গ্রাহক সেবা নিশ্চিত করতে পারছেনা তা নিয়ে নানা প্রশ্ন উঠেছে গ্রাহকদের মধ্যে।
এ অভিযোগ অস্বীকার করে কচুয়াডাঙ্গা সাব-ষ্টেশনের নির্বাহী প্রকৌশলী শামীম আহম্মেদ বলেন শতভাগ বিদ্যুৎ সরবাহের পরিস্থিতি এখনও দেশে নেই। তবে তিনি দাবি করেন এই সাব-ষ্টেশনের গ্রাহকরা সঠিক ভাবেই সেবা পাচ্ছে।
বাংলাদেশ বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড টাঙ্গাইলের কচুয়াডাঙ্গা সাব-ষ্টেশনের গ্রাহকরা যাতে সঠিক সেবা পায় এ জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন গ্রাহকরা।

Leave A Reply

Your email address will not be published.