ঘাটাইলে বাম্পার ফলন হলেও লোকসানে হতাশ ধুন্দুল চাষী সালাম

0 68

ঘাটাইল  প্রতিনিধিঃ

টাঙ্গাইলের ঘাটাইল উপজেলার আহাওয়া অনুকুলে থাকায় এখান কার মাটি উর্বর এ উপজেলা সবজী চাষের জন্য বিখ্যাত। দিগন্ত জোড়া সবজি ক্ষেত । যে দিকে চোখ যায় সবজি আর সবজি। আবহাওয়া অনুকূল থাকায় সবজির বাম্পার ফলন হয়েছে টাঙ্গাইল ঘাটাইল উপজেলার পাহাড়ি জনপদ সহ বিভিন্ন এলাকাতে।
সবজির বাম্পার ফলন হলেও করোনা ভাইরাসের কারনে দৃশ্যপট পাল্টে গেছে। ক্রেতা নেই,বাজার বন্ধ,আসেনা ব্যাপারিও। পাইকার না আসায় বড় ধরনের লোকসানের মুখে পড়েছে চাষিরা। লোকসানে পড়ে ঋন বোঝা পরিশোধ নিয়ে চিন্তিত তারা।

এখন দেশে করোনা পরিস্থিতিতে বাজার গুলো ক্রেতা না থাকায় অনেকটাই বিপাকে পড়েছেন এ অঞ্চল চাষিরা। ক্রেতার অভাবে দরপতন হয়েছে পাইকারি সবজির বাজার গুলোতে। গনপরিবহন সংস্কটের কারনে রাজধানি সহ আশে পাশের এলাকা থেকে পাইকার আসছে না সবজির বাজারে। আর তাই বাজারে সবজি বিক্রি করতে গিয়ে রিকশা ও ভ্যানের খরচ উঠাতে পারছে না চাষিরা।

করোনা ভাইরাস আতঙ্ক ও সরকারি নিষেধাজ্ঞায় ঢাকা টাংগাইল মহাসড়কে গনপরিবহন চলাচল বন্ধ থাকায় পাইকারি ক্রেতার অভাবে তা বিক্রি করা যাচ্ছে না উৎপাদিত সবজি। স্থানীয় ভাবে আসা ক্রেতাদের নিকট স্বল্পমূল্যে কিছু সবজি বিক্রি করা গেলেও ন্যায্য মূল্য পাওয়া যাচ্ছে না। ফলে উৎপাদিত সবজি বাজারে নিতে রিকশা বা ভ্যান ভাড়াও পাচ্ছেন না কৃষকরা ।

উপজেলার জামুরিয়া ইউনিয়নের সুনটিয়া গ্রামের কৃষক আঃ ছালাম জানান, দেড় বিঘা জমি ধুন্দুল চাষ করেছি। বতর্মানে সবজির দাম এতো কম যা উৎপাদিত খরচ ও শ্রমিক খরচ উঠাতে হিমশিম খেতে হয়। মৌসুমের শুরুতেই করোনা আতংকের পরিবহন চলাচল বন্ধ থাকায় সবজি বাজারজাত করতে না পারায় ব্যাপক ক্ষতির সম্মুখীন হতে হবে।

জামুরিয়া ইউনিয়নের ২নং ওয়াডের ইউপি সদস্য বলেন, প্রতিবছরে ন্যায় এবার আঃ সালাম দেড় বিঘা জমিতে ধুন্দুল চাষ করেছে। এখান থেকে যে আয় হয় তা সন্তাদের লেখা পড়া সহ সংসার পরিচালনা করেন। কিন্ত করোনা ভাইরাসের কারনে আশানুরুপ দাম না পাওয়া লোকসানের পড়ে ঋনের বোঝা টানতে হবে।তাই তিনি জন প্রতিনিধিদের উদ্দেশ্যে বলেন, এসব চাষিদের কাছ থেকে সবজি কিনে খাদ্য সামগ্রীর সঙ্গে যোগ করে বিতরন করার আহবান করেন। তানা হলে এ বছর লাভের মুখ দেখার পরিবর্তে বড় ধরনের লোকসানের বোঝা বইতে হবে। সবজি বাজারে আনা হলেও আশানুরুপ দাম পাচ্ছে না কৃষকরা । ফলে এবছর যে কৃষকের যে ক্ষতি হবে,কৃষক হিসেবে তা কাটিয়ে কঠিন হবে বলে তিনি জানান।

উপসহকারি কৃষিকর্মকর্তা মোঃ রুহুল আমিন বলেন , কৃষক আঃ সালাম তার পরামর্শ ক্রমে সবজি চাষ বাম্পার ফলন ফলিয়েছেন। কিন্তু করোনা ভাইরাসের প্রভাবে কারনে পবিহন বন্ধ থাকায় বাজারে পাইকারী না আসায় আশানুরুপ দাম পাচ্ছে না। বর্তমান সরকার কৃষকদের মাঝে প্রনোদনা দেয় তাহলে তারা ক্ষতি পুষাতে পারবে এবং সবজি চাষে আগ্রহ বাড়বে বলে তিনি মনে করেন।

Leave A Reply

Your email address will not be published.