tangail-clinic-pic-2-copy-copy

টাঙ্গাইলে ভুল চিকিৎসায় রোগী মৃত্যুর অভিযোগ

tangail-clinic-pic-2-copy-copyসংবাদ স্রোত :
টাঙ্গাইল পৌর এলাকায় ভুল চিকিৎসায় রোগীর মৃত্যু হয়েছে। রোববার রাতে ঘটনাটি ঘটেছে নতুন বাসস্ট্যান্ড এলাকার সোনিয়া ক্লিনিকে। এ অভিযোগ করেছেন নিহত রোগী বিলকিস বেগমের (৩৮)স্বামী সাইফুল ইসলাম। নিহত বিলকিস টাঙ্গাইল সদর উপজেলার কাতুলি ইউনিয়নের চৌবাড়িয়া গ্রামের সাইফুল ইসলামের স্ত্রী। এ ঘটনার পর থেকে চিকিৎসক এম.এম.মনিরুজ্জামান পলাতক রয়েছেন।
নিহত বিলকিসের জা চায়না খাতুন এর অভিযোগে জানা যায়, গত মাস খানেক আগে টনসিল সমস্যা নিয়ে সোনিয়া ক্লিনিকের চিকিৎসক ও টাঙ্গাইল শেখ হাসিনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ইএনটি বিভাগের প্রধান এবং সহযোগি অধ্যাপক এম.এম.মনিরুজ্জামানের কাছে চিকিৎসা গ্রহণ করতে আসেন বিলকিস বেগম। চিকিৎসক এ সময় তাকে প্রাথমিক চিকিৎসার জন্য এক সপ্তাহের ওষুধ দেন। প্রাথমিক চিকিৎসার ওষুধ শেষে রোববার বিকেলে পুনরায় চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে আসেন বিলকিস বেগম। এ সময় চিকিৎসক রোগীকে জরুরী ভাবে অপারেশন করতে পরামর্শ দেন চিকিৎসক আর অপারেশন না করলে ক্যান্সার হবে বলে সতর্ক করেন। এর ফলে বিলকিস বেগম অপারেশনের প্রস্তুতিতে কয়েকটি পরিক্ষা নিরিক্ষা করান। তবে বিলকিস অপারেশন আজকে না করে ছেলের স্কুল পরিক্ষা শেষে করার দাবি জানান। এ স্বত্তেও চিকিৎসক তাৎক্ষনিক অপারেশনের সিদ্ধান্ত দেন। এতে অপারগ হয়ে বিলকিস অপারেশনে রাজি হন। এরপর অপারেশন চালায় চিকিৎসক এম.এম.মনিরুজ্জামান। এসময় অপারেশনে সহযোগিতা করেন অজ্ঞানের চিকিৎসক এম.কে মানিক ও সহযোগী সাইফুল ইসলাম বাবু। কিছুক্ষণ পর রোগী বিলকিসকে অপারেশন থিয়েটার থেকে বের করা হলেও অচেতন অবস্থায় ছিল বিলকিস। রোগীর এ অবস্থা দেখে চিকিৎসকের সাথে যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হলেও তিনি রোগীর পরিবারের সাথে সাক্ষাৎ করেননি। এমনকি অপারেশন শেষের কোন চিকিৎসাপত্রও প্রদান করেননি। এ অবস্থায় বাধ্য হয়ে উপস্থিত সেবিকাদের সহযোগিতায় রোগী বিলকিসের পেসার মাপাসহ রোগীর জ্ঞান ফেরার বিষয়ে জানতে চাওয়া হলেও তারা কোন উত্তর দেননি। কিছুক্ষণ পর দেখা যায় রোগীর চোখের নীচে কালো আবরণ আর নাকে রক্ত লক্ষ্য করা যায়। এ নিয়ে রোগীর পরিবার উত্তেজিত হয়ে ক্লিনিকের একজন সেবিকাকে ডেকে আনেন। ওই সেবিকা রোগীর চিকিৎসা অনুযায়ি স্যালাইন দেয়ার চেষ্টা করেন। তবে রোগীর হাতে দেয়া স্যালাইন ভিতরে প্রবেশ না করায় ওই সেবিকাসহ পরিবার রোগী মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত হন।
নিহত বিলকিসের স্বামী সাইফুল ইসলাম এ ঘটনার দৃষ্টান্ত মূলক শাস্তির দাবী তুলেছেন।
ক্লিনিকের চিকিৎসক এম.এম.মনিরুজ্জামান ও কর্তৃপক্ষ রেজভী পলাতক থাকায় তাদের বক্তব্য গ্রহণ করা যায়নি।
এ প্রসঙ্গে টাঙ্গাইল জেলা ক্লিনিক মালিক সমিতির সভাপতি লায়ন এম.শিবলী সাদিক এ রোগীর মৃত্যুর কথা স্বীকার করেছেন। তবে বিষয়টি মিমাংসা হয়েছে বলেও জানান তিনি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Protected by WP Anti Spam