মাভাবিপ্রবি সিপিএস বিভাগের শিক্ষার্থী ওমর ফারুক আর নেই

tangail-mbstu-student-death-pic-2-copy

tangail-mbstu-student-death-pic-2-copyসংবাদ ¯্রােত :
মাওলানা ভাসানী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্রিমিনোলজি এন্ড পুলিশ সায়েন্স বিভাগের ৩য় বর্ষ ২য় সেমিস্টারের শিক্ষার্থী ওমর ফারুক ইন্তেকাল করেছেন। ইন্নালিল্লাহে ওয়া ইন্না ইলাহে রাজেউন। রোববার সকাল ৭.৩০ টায় টাঙ্গাইল আবহাওয়া অফিসের বিপরীত পাশে অবস্থিত তার এস.এস.সি পরীক্ষার্থী ছাত্রী সুমাইয়ার বাসায় পড়ানোরত অবস্থায় হ্রদরোগ জনিত জটিলতায় তার মৃত্যু হয়। পাবনা জেলার সুজানগর উপজেলার বাড়ইপাড়া গ্রামে আসলামের ছেলে ওমর। চার ভাইবোনের মধ্যে ওমর বড় ছিলেন। ওমর তার ছোট বোনকে নিয়ে বিশ্ববিদালয়ের কাছাকাছি একটি বাসায় থাকতেন। তার ছোট বোন সন্তোষ জাহ্নবি স্কুলে দশম শ্রেণীতে পড়াশোনা করেন বলে জানা যায়।
জানা যায়, রোববার ওমর সুমাইয়াকে পড়ানোর সময় হঠাৎ চেয়ার থেকে পড়ে যায় এবং খিচুনী দিয়ে কাপতে থাকে। সুমাইয়ার মা তার নিকট আত্মীয়দের বিষয়টি অবগত করেন এবং আশেপাশের লোকজনের সহায়তায় টাঙ্গাইল শেখ হাসিনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যায়। সেখানকার কর্তব্যরত ডাক্তার তাকে মৃত ঘোষনা করে। হৃদরোগ জনিত জটিলতার কারনে তার মৃত্যু হয়েছে বলেও নিশ্চিত করেন কর্তব্যরত চিকিৎসকরা ।
বিশ^বিদ্যালয়ে পড়াশোনার পাশাপাশি সে বিভিন্ন সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের সাথে জড়িত ছিলেন। সে কলেজ জীবনে রোভার স্কাউট, বিশ^বিদ্যালয় জীবনে প্রথম আলো বন্ধুসভা এবং ধ্রুবতারা টেকনোকালচারাল ক্লাবের সক্রিয় সদস্য ছিলেন।
বর্তমানে তার মরদেহ টাঙ্গাইল শেখ হাসিনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল রয়েছে।
এ প্রসঙ্গে বিশ্ববিদ্যালয়ের সিপিএস বিভাগের চেয়ারম্যান মোঃ জহিরুল ইসলাম জানান, হাসপাতালে গেয়ে ওরম ফারুক হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করেছে বলে কর্তব্যরত চিকিৎসকের কাছ থেকে তারা নিশ্চিত হয়েছেন। মরহুম শিক্ষার্থী ওমর ফারুকের মরদেহ ভাসানী ক্যাম্পাসে আনা হয়েছে। বিকেল ৩টায় জানাযা শেষে তার মরদেহ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হবে বলেও জানান তিনি।

*

*

Protected by WP Anti Spam

Top